প্রচ্ছদ / শিক্ষাঙ্গন / কে হচ্ছে ঢাবির নতুন কোষাধ্যক্ষ?

কে হচ্ছে ঢাবির নতুন কোষাধ্যক্ষ?

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) আর্থিক ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব থাকে কোষাধ্যক্ষের দায়িত্বে বাজেট প্রণয়ন, বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনৈতিক কার্যক্রম পর্যালোচনা, প্রকল্পে অর্থের পরিমাণ মূল্যমান ইত্যাদি কোষাধ্যক্ষ দেখভাল করে থাকেন। ফলে গুরুত্বপূর্ণ পদগুলোর একটি হলো কোষাধ্যক্ষের পদ। গত বৃহস্পতিবার শেষবারের মতো অফিস করার মাধ্যমে শেষ হয় বর্তমান কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মো. কামাল উদ্দিনের মেয়াদ শেষ হয়। দুবারের মেয়াদ শেষে এবার তিনি আলোচনায় নেই কোষাধ্যক্ষ পদের জন্য।

বিশ্ববিদ্যালয়ের বেশ কয়েকজন প্রবীণ শিক্ষক জানান, পদ সৃষ্টির পর থেকে বাণিজ্য অনুষদের শিক্ষকরাই এই পদে নিয়োগ পেয়ে থাকেন। ঢাবির কোষাধ্যক্ষের কাজের পরিধি ও ব্যাপকতার কথা চিন্তা করলে ব্যবসায় প্রশাসনে উচ্চতর ডিগ্রি ও অভিজ্ঞতা ছাড়া এই পদে দায়িত্ব পালন প্রায় অসম্ভব। বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মো. কামাল উদ্দীনের মেয়াদ শেষ হয়েছে গতকাল। খুব শিগগিরই ঢাবির নতুন কোষাধ্যক্ষ নিয়োগ দিবেন বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য ও রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ, এমনটাই ধারণা সংশ্লিষ্টদের।

কোষাধ্যক্ষের দৌঁড়ে যাদের নাম শোনা যাচ্ছে তারা হলেন- ব্যবস্থাপনা বিভাগের অধ্যাপক ড. মুশফিক মান্নান চৌধুরী ও একই বিভাগের অধ্যাপক মো. আলী আক্কাস, অ্যাকাউন্টিং অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগের অধ্যাপক মমতাজ উদ্দিন আহমেদ, ম্যানেজমেন্ট এন্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মো. আকরাম হোসেন, মার্কেটিং বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. মাসুদুর রহমান ও একই বিভাগের তার স্ত্রী অধ্যাপক ড. মুবিনা খন্দকার, ব্যবসায় প্রশাসন ইন্সটিটিউটের (আইবিএ) অধ্যাপক ড. ফারহাত আনোয়ার এবং ট্যুরিজম এন্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ বদরুজ্জামান ভুঁইয়া কাঞ্চন।

নতুন কোষাধ্যক্ষ নিয়োগের বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেন, ঢাবির কোষাধ্যক্ষ নিয়োগ দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য। এই বিষয়ে তিনি নিশ্চয়ই অবগত আছেন। সময় মতোই তিনি কোষাধ্যক্ষ নিয়োগ দিবেন।

About jne

Check Also

ছয় মাস বেতন পাচ্ছেন না দারুল আরকাম মাদরাসার শিক্ষকরা, করোনাকালেও পাননি কোনো সরকারি সাহায্য-সহযোগিতা

মাদারীপুর প্রতিনিধি : ইসলামিক ফাউন্ডেশন পরিচালিত দারুল আরকাম ইবতেদায়ি মাদরাসার ২ হাজার শিক্ষক ছয় মাস …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *