শিরোনাম
প্রচ্ছদ / জাতীয় / এবারের বিশ্ব ইজতেমার আয়োজনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রশংসা করেছেন বিদেশী মেহমানরা-ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

এবারের বিশ্ব ইজতেমার আয়োজনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রশংসা করেছেন বিদেশী মেহমানরা-ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

বিশ্ব ইজতেমার জন্য টঙ্গীতে যায়গা বরাদ্দ করেছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। রাজধানীর আশকোনা হজ ক্যাম্পে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে বিশ্ব ইজতেমায় অংশ নেয়া মেহমানদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময়ের সময় ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আলহাজ্ব এডভোকেট শেখ মো: আব্দুল্লাহ আরও বলেন, বাংলাদেশে তাবলীগ জামাতের বিশ্ব ইজতেমা আয়োজন আমাদের জন্য অত্যন্ত গৌরবের বিষয়। তাবলীগ জামাত দ্বীনের মেহনতে নিবেদিত ধর্মপ্রাণ মুসল্লীদের নি:স্বার্থ স্বেচ্ছাশ্রমে পরিচালিত হয়। সারা পৃথিবীতে ইসলামের প্রচার এবং মানুষকে দ্বীনের পথে দাওয়াতের ক্ষেত্রে তাবলীগ জামাতের খেদমত একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। তাবলীগ জামাতের বিশ্বব্যাপী কার্যক্রমকে কেন্দ্র করে বাংলাদেশে বিশ্ব ইজতেমার এত বিশাল বড় আয়োজন করা নি:সন্দেহে একটি গর্বের বিষয় বলেও উল্লেখ করেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী।

গত মঙ্গলবার ঢাকা আশকোনা হজ ক্যাম্পে স্বল্প সময়ের জন্য অবস্থানরত বিশ্ব ইজতেমার ১ম পর্বে আগত বিদেশী মুসুল্লীদের কাছে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সালাম পৌঁছে দেন এবং তাঁদের খোঁজ খবর নেন তিনি।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তার দূরদর্শিতা দিয়ে ইসলামের খেদমতে অরাজনৈতিক সংগঠন তাবলীগ জামাতের গুরুত্ব ও তাৎপর্য যথাযথভাবে বুঝতে পেরেছিলেন। একজন সত্যিকারের ঈমানদার হিসেবে বঙ্গবন্ধু তাবলী জামাতের দাওয়াতী কাজের সুবিধার্থে টংগীতে বিশ্ব ইজতেমা আয়োজনের জন্য বিশাল জায়গা বরাদ্দ করেছিলেন। যার ফলে আজকে বিশ্ব ইজতেমা আয়োজন করা সম্ভব হচ্ছে। তাবলীগ জামাতের মারকাজ এবং মসজিদ নির্মাণের জন্য বঙ্গবন্ধু কাকরাইলেও জমি বরাদ্দ দিয়েছিলেন।

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা যিনি একজন ধার্মিক মুসলিম মহিয়সী নারী, তিনি তাবলীগ জামাতের বিষয়ে অত্যন্ত আন্তরিক ও বিশেষ অনুরাগী। তিনি বাংলাদেশে সূচারুরূপে ও যথাযোগ্য মর্যাদায় তাবলীগ জামাতের বিশ্ব ইজতেমা আয়োজনের বিষয়ে অত্যন্ত আন্তরিক ও সজাগ। সুন্দর, সুষ্ঠু ও নিরাপদে বিশ্ব ইজতেমা ব্যবস্থাপনা করার জন্য তিনি সকলকে কঠোর নির্দেশনা প্রদান করেছেন। তারই নির্দেশে জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের সকল সংস্থা অত্যন্ত আন্তরিকতা ও দায়িত্বশীলতার সাথে এবছরের প্রথম পর্বের ইজতেমা সফলভাবে সম্পন্ন করার প্রস্তুতি গ্রহণ করেছিলেন। বিদেশী মুসল্লীসহ সকলের নিছিদ্র নিরাপত্তা বিধানের লক্ষ্যে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী ছিল সর্বোচ্চ সতর্কতা অবস্থায়। দিনরাত সক্রিয়ভাবে দায়িত্ব পালন করে ইজতেমাকে সফলভাবে সম্পন্ন করেছেন। এর ফলে এবারের বিশ্ব ইজতেমায় স্মরণকালের সবচেয়ে বেশী মুসল্লীদের সমাবেশ হয়েছে।

আগামী ১৭ জানুয়ারি হতে ২য় পর্বেও যাতে মুসল্লীরা নিরাপদ ও নির্বিঘ্নে ইজতেমায় আসতে পারেন সেজন্য সরকার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে এবং ইনশাআল্লাহ অত্যন্ত সুন্দরভাবেই এবছরের ইজতেমার ২য় পর্বও সফলভাবে সম্পন্ন হবে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, বিদেশ থেকে আগত মুসুল্লীগণ এ দেশের গুরুত্বপূর্ণ মেহমান। তাঁদের সেবা প্রদানে সরকারের সর্বোচ্চ আন্তরিকতা রয়েছে।  বিদেশী মুসুল্লীদের সাথে সাক্ষাৎকালে প্রতিমন্ত্রী বাংলাদেশের স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানসহ তাঁর পরিবারের সকল শহীদের আত্মার মাগফেরাত  এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সুস্থ্যতা ও দীর্ঘায়ূ কামনা করে দোয়া চান।

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী বাংলাদেশ, ভারত, পাকিস্তান, তুরস্ক, ইতালী, সৌদিআরবসহ বিভিন্ন দেশের তাবলীগ জামাতের মুরুব্বীদের সাথে হৃদ্যতাপূর্ণ পরিবেশে মতবিনিময় করেন।  এ সময় বিদেশী মেহমানগণ সুন্দর ও সফলভাবে বিশ্বইজতেমার ১ম পর্ব সম্পন্ন করায় বাংলাদেশ সরকারের প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন এবং সার্বিক ব্যবস্থাপনায় সন্তোষ প্রকাশ করেন।

About arthonitee

Check Also

চিকিৎসকরা কেন চিকিৎসা দেবে না, এটা খুব দুঃখজনক : প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, এটা খুব দুঃখজনক মানুষ এক হাসপাতাল থেকে অন্য হাসপাতালে ছুটে বেড়াচ্ছে, …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *