প্রচ্ছদ / তৃনমূলের রাজনীতি / গোপালগঞ্জ-১ এ গণসংযোগ চালাচ্ছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ’ এর মিজানুর রহমান মিজান

গোপালগঞ্জ-১ এ গণসংযোগ চালাচ্ছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ’ এর মিজানুর রহমান মিজান

mizan

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এককভাবে ৩০০ আসনে প্রার্থী দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে চরমোনাই পীরের নেতৃত্বাধীন ‘ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ’। এজন্য প্রার্থী বাছাইসহ প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নিয়ে রাখছে দলটি। এরই মধ্যে প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করেছে দলটি। গোপালগঞ্জ-১ (মুকসুদপুর কাশিয়ানী ) থেকে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ’ এর মনোনয়ন পাচ্ছেন সাংবাদিক মো. মিজানুর রহমান মিজান। অনেক আগে থেকেই তিনি নির্বাচনী এলাকায় গণসংযোগ চালিয়ে আসছেন।
সংশ্লিষ্টরা জানান, আগামী জাতীয় নির্বাচন সবার অংশগ্রহণে অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে অনুষ্ঠানের নিশ্চয়তা পেলেই তাতে ইসলামী আন্দোলন অংশ নেবে। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির মতো কোনো নির্বাচন হলে তাতে দলটি অংশ নেবে না বলেও সিদ্ধান্ত রয়েছে।
জানা গেছে, দেশের অন্যতম প্রধান এ ইসলামী দলকে নিয়ে রাজনৈতিক অঙ্গনে বেশ কৌতূহল রয়েছে। বিশেষ করে ২০১৪ সালের নির্বাচনের আগে ইসলামী আন্দোলনকে জোটে ভেড়াতে পৃথক তৎপরতা চালায় আওয়ামী লীগ ও বিএনপি। আসন ভাগাভাগিসহ নানা প্রস্তাবও দেওয়া হয় সংশ্লিষ্টদের পক্ষ থেকে। বিভিন্ন ইসলামী দলের পক্ষ থেকেও একই ধরনের উদ্যোগ নেওয়া হয়। তবে শেষ পর্যন্ত মত বা দলীয় স্বার্থের মিল না হওয়ার কারণ দেখিয়ে একলা চলো নীতিতে থাকার সিদ্ধান্ত নেয় দলটি। আর অবাধ, সুষ্ঠু ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন না হওয়ার অভিযোগে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে অংশ নেয়নি ইসলামী আন্দোলন।

জানা গেছে, ১৯৮৭ সালের ১৩ মার্চ একটি ইসলামী মোর্চা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয় ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলন। ৯০ সালের দিকে এরশাদবিরোধী আন্দোলনের মাধ্যমে মোর্চাটি চরমোনাইয়ের মরহুম পীর মুফতি ফজলুল করিমের নেতৃত্বে রাজনৈতিক দল হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে। ২০০৮ সালে নিবন্ধনের সময় দলটির নাম পরিবর্তন করে ‘ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ’ করা হয়। চরমোনাই পীরের এ দল প্রথম দিকে নির্বাচনবিমুখ হলেও একপর্যায়ে সেই অবস্থান থেকে সরে আসে। ২০০৮ সালে নবম জাতীয় নির্বাচনে ১৬৫টি আসনে প্রার্থী দেয় দলটি। তবে তাদের কেউ জয়লাভ করতে পারেননি। ওই নির্বাচনে ভোটপ্রাপ্তির হার ছিল ১ দশমিক ০৫ শতাংশ। প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি থাকা সত্ত্বেও সুষ্ঠু পরিবেশ না থাকার অভিযোগে দশম সংসদ নির্বাচনে অংশ নেয়নি দলটি। অবশ্য বর্তমান মহাজোট সরকারের মেয়াদে অনুষ্ঠিত বিভিন্ন স্থানীয় সরকার নির্বাচনে অংশ নেন ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থীরা। যদিও নির্বাচন সুষ্ঠু না হওয়ার অভিযোগে কিছু নির্বাচন বর্জনও করে দলটি। কয়েকটি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে নির্বাচিতও হয়েছেন দলটির প্রার্থীরা। তবে আগামী জাতীয় নির্বাচনে দলটির ভোটের সংখ্যা অনেক বাড়বে বলে আশা প্রকাশ করেন নেতারা।

About arthonitee

Check Also

mada

মাদারীপুর জেলা যুবলীগের আয়োজনে শেখ কামালের ৬৯তম জন্মবার্ষিকী পালিত

আরাফাত হাসান: মাদারীপুর জেলা যুবলীগের আয়োজনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জেষ্ঠ পুত্র শেখ কামালের ৬৯তম …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *