প্রচ্ছদ / মতামত / রাজনৈতিক জেনারেল খোন্দকার দেলোয়ার

রাজনৈতিক জেনারেল খোন্দকার দেলোয়ার

অ্যাড. জয়নাল আবেদিন মেজবাহ
আজ বিএনপির সাবেক মহাসচিব খোন্দকার দেলোয়ার স্যারকে খুব মনে পরছে।তাঁর আদর, স্নেহ, রাজনৈতিক শিক্ষা, প্রজ্ঞা, জ্ঞান, আত্মবিশ্বাস ছিল অনন্য ও অসাধারন। সামরিক সরকারের কোন চোখ রাঙ্গানিকে তিনি তোয়াক্কা করেন নি। তিনি ছিলেন রাজনৈতিক জেনারেল।সকল ভীতির উর্দ্ধে।

আমার সৌভাগ্য যে তিনি অনেক গুরুত্ব পূর্ণ কাজ অত্যন্ত বিশ্বাস করে আমাকে দিয়ে করিয়েছেন। আমার জেলা গোপালগন্জ ও আমার পরিবার বিএনপির রাজনীতির সাথে সংস্লিষ্ট নয় এই মিথ্যা অভিযোগ করে আমার কিছু রাজনৈতিক বন্ধু আমার প্রতি বিশ্বাসে চীর ধরানোর চেষ্টা করে। তিনি আমার জেলায় আমার পারিবারিক বিষয়েই শুধু নয় আমার মাতৃকুলের খোঁজ নেন, এর পর আমার সেই বন্ধুদের ডেকে মিথ্যা অপবাদ দেওয়ায় সতর্ক করেছিলেন।

সেদিন স্যার যদি তদন্ত না করে ওদের কান কথায় বিশ্বাস করে আমার প্রতি যদি বিরূপ সিদ্ধান্ত নিতেন তাহলে হয়ত আমি রাজনীতি হতে ছিটকে পরতাম। আমি চীর কৃতজ্ঞ।

রাজনীতির কারনেই তিনি আইন পেশায় স্থায়ী ভাবে থাকতে পারেন নি। বি এনপি চেয়ারপার্সন কারগারে। মহাসচিব স্যার মামলার ফাইল পড়ার পর তিনি নিজেই শুনানী করবেন বলে জানালেন। আদালতে চমৎকার ভাবে শুনানী করলেন। আমরাত অবাক। এত গোছালো ভাবে এত কম সময়ে এত সুন্দর শুনানী করে সকলকে তাক লাগিয়ে দিলেন। আইনের জোড়াল যুক্তি ও ব্যাখ্যা ছিল অসাধারন। মামলার বিষয়ে অত্যন্ত সাবধান ও সতর্ক ছিলেন তিনি। আমি আগে জানতাম না তিনি আইন এত ভাল বুঝতেন।ম্যাডাম, বর্তমান ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান, দলীয় নেতা কর্মী ও নিজের মামলা থাকলে কোনক্রমে না আসতে পারলে আদেশ না হওয়া পর্যন্ত বার বার মোবাইল করতেন আদেশ জানার জন্য।

সিদ্ধান্তের বিষয়ে তিনি ছিলেন অনড়,অকুতোভয় ও নির্ভিক। অনেক বড় বিপদ মোকাবেলা করেছেন বীর চিত্তে। হিমালয়ের ন্যায় অটল ছিলেন তিনি।

বি এন পি চেয়ার পার্সনের মঈনুল রোড এর বাড়ির বিষয়ে হাই কোর্টে যাওয়ার বিরুদ্ধে ছিলেন তিনি। আজ তাঁর সিদ্ধান্ত সঠিক ছিল বলে প্রমানিত।
তাঁর একটি উপদেশ আমার এখনও মনে পড়ে,” কাজ করবে-কাজই তোমাকে উপযুক্ত স্থানে নিবে। রাজনীতিতে স্পষ্টবাদী হবে, পদের জন্য তদবির করবেনা, এমনকি বলবেও না। কারো পকেট রাজনীতি করবে না।সততা, স্পষ্টবাদিতা আর কাজই হবে তোমার যোগ্যতার মাপকাঠি। ” আজও কথাগুল আমার কানে ধ্বনিত হয়।

স্যারের বাসা থেকে কখনই না খেয়ে আসতে দিতেন না। একদিন কোর্ট এর সময় একটি জরুরি বিষয়ে কথা বলতে বাসায় ডাকলেন।কথা শেষ করে দ্রুত কোর্টের উদ্দেশ্যে বাসা থেকে গেট পর্যন্ত চলে আসছি, স্যার এর ডাক শুনে পিছনে ফিরেই দেখি অনেক গুল ফল হাতে তিনি। আমার হাতে দিয়ে,চেম্বারের সবাইকে নিয়ে খেতে বললেন। এত আদর আর ভালবাসা কোথায় পাব। এমন ভাবে নিজ হাতে কে নিচে এনে ফল খেতে দিবে।

কিছু দালাল যারা মরহুম আব্দুল মান্নান ভূইয়ার পক্ষে যেয়ে তাকে বারবার বিপদে ফেলেছে- দল ভাঙ্গার ষড়যন্ত্র করেছে তারা যখন দল প্রীতির কথা বলে, তখন অবাক হই। আজ তিনি বেচে থাকলে দালাল দের বাহাদূরী আর পদ মর্যাদা দেখে বড় কষ্ট পেতেন।

আজ তিনি ইহ জগতে নেই। আমাদের ছেড়ে চলে গেছেন।শ্রদ্ধা আর ভালবাসার চীর অম্লান।তিনি আছেন অন্তরের অন্তস্থলে।শ্রদ্ধার্ঘ তাঁর বিদেহী আত্মার প্রতি। পরপারেও যেন তিনি ভাল থাকেন।
বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-আইন সম্পাদক অ্যাড. জয়নাল আবেদিন মেজবাহ এর ফেসবুক ওয়াল থেকে নেয়া

About arthonitee

Check Also

খনিজ তেল (base oil) এর প্রকারভেদ

ইঞ্জি. জয়নাল আবেদিন: ২০১৭ সালে, সারা পৃথিবী ব্যাপী লুব্রিকেন্টস এর চাহিদা ছিল ৩৭.৫ মিলিয়ন মেট্রিকটন। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *