প্রচ্ছদ / সফলতার গল্প / একজন সফল মানুষ “নাজিম উদ্দিন”

একজন সফল মানুষ “নাজিম উদ্দিন”

Prize Single Photo

বেনজির আবরার:

সফলতার সমার্থক শব্দ অনেক থাকলেও তার কাজ করার সক্ষমতা আর নিজের নেয়া উদ্যোগের সফলতা তাকে নিয়ে যাচ্ছে অনন্য উচ্চতায়। তিনি নাজিম উদ্দিন।

যুক্তরাজ্যের স্বনামধন্য প্রতিষ্টান ইউকে বিসিসিআই এর ২০১৬ সালে জিতেছিলেন মর্যাদাপূর্ণ পুরস্কার ‘Entreprenur of the year’ খেতাব। সফলতার স্বর্নশিখরে অবস্থান করা মানুষটির সাথে কথা বলেছেন যখন এপ্রতিবেদক তখন তিনি ব্যস্ত আরো নিত্যনতুন প্রকল্প হাতে নিতে-

এবার আসি বিস্তৃত পরিচয়ে, চট্টগ্রামের সন্তান যুক্তরাজ্য প্রবাসী মানুষটি একাধারে চার্টার্ড সার্টিফাইড এ্যাকাউন্টেন্ট ও হায়ার এডুকেশন একাডেমির একজন সম্মানিত ফেলো, যুক্ত রয়েছেন দীর্ঘ সময় ধরে তিনি যুক্তরাজ্যের একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক এবং এসিসিএ‘র পরীক্ষকের পাশাপাশি দাতব্য প্রতিষ্ঠান ‘সিটিজেন এডভাইস বডি’তে
একজন ট্রাস্টি ও ট্রেজারার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।বসবাস করছেন যুক্তরাজ্যে, একাডেমি ও এ্যাকাউন্টেন্ট পেশার বাইরে তিনি
একজন সফল উদ্যোক্তা।

ঐকান্তিক প্রচেষ্টা ও কঠোর পরিশ্রম করে খুব অল্প বয়সেই বলা যায় শূন্য থেকে আজ যুক্তরাজ্যের মিলিয়নার ক্লাবে জায়গা করে নিয়েছেন নাজিম।

জানালেন, “টিপু সুলতানের দেশ মহীশুর বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক শেষ করি। দেশের মতো গৎবাঁধা শিক্ষা ব্যবস্থা ও পরীক্ষার প্রচলিত নিয়ম পদ্ধতি থেকে ভিন্ন ছিল সে পরিবেশ। যার ফলে বাংলাদেশী অনেক ছাত্র বছরের পর বছর কলেজের গন্ডি পেরোতে ব্যর্থ হয়। তবে আমি সৌভাগ্যবান। আমিই সম্ভবত প্রথম বাংলাদেশী যে প্রথমবারেই প্রথম বিভাগ নিয়ে পাস করে বের হয়েছি,এরপর বাংলাদেশ নিয়ে প্রতিষ্ঠানটির ধারণা কিছুটা পরিবর্তন হতে শুরু করে।

Prize Handbover

উদ্দ্যোক্তা হওয়ার গল্পটাও ভিন,এরপর চট্টগ্রামে ফিরে আসা, পারিবারিক ব্যবসায় যুক্ত হওয়ার ইচ্ছা ছিল। কিন্তু তার প্রয়াত বাবার ইচ্ছা নাজিম নতুন কোন ব্যবসায় যুক্ত হোক। একজন সফল উদ্যোক্তা হিসেবে তখন তার বাবার বেশ নামডাক, তিনি সব সময় নতুন ব্যবসার দিকে নজর দিয়েছেন,সব নতুন ক্ষেত্রে। ছেলেকে তিনি নতুন ব্যবসার জন্য উৎসাহিত করেন,তবে সত্যি বলতে তিনি তখনও প্রস্তুত ছিলাম না। তারপরেও যখন দেশের বাইরে যাবার সুযোগ এলো কাজে লাগালাম আর নিজস্ব ফার্ম খুলে তুললাম।

উদ্দ্যোক্তা হিসেবে সফল মানুষটির রয়েছে এর বাইরেও বেশ উজ্জল ক্যারিয়ার।মানসিকতায় তারুণ্যে বিশ্বাসী নাজিম উদ্দিন বললেন,”আমি চার্টার্ড সার্টিফাইড এ্যাকাউন্টেন্ট ও হায়ার এডুকেশন একাডেমির একজন ফেলো। দীর্ঘ সময় ধরে আমি যুক্তরাজ্যের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা ও এক্সটারনাল এডমিনার হিসেবে কাজ করছি। একাডেমিক কাজের বাইরে আমি যুক্তরাজ্যের একটি দাতব্য প্রতিষ্ঠান সিটিজেন এডভাইস বডিতে একজন ট্রাস্টি ও ট্রেজারার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলাম। একাডেমিক ও এ্যাকাউন্টেন্ট পেশার বাইরে আমি একজন ব্যবসায়ী ও উদ্যোক্তা। আমি যুক্তরাজ্যের বেশকিছু কোম্পানির উল্লেখযোগ্য শেয়ারের অংশীদার।

নাজিম উদ্দিনের গড়ে তোলা বিভিন্ন প্রতিষ্টানে প্রচুর প্রবাসী কাজ করছেন। তিনি সর্বাত্ত্বক সহযোগীতাও করেন যথাসাধ্য, বুকের মধ্যে তো বাংলাদেশটা।

একজন একাডেমিক ও এ্যাকাউন্টেন্ট হওয়ার পরও কেন ব্যবসায়ী হওয়ার বাসনা করলেন? ব্যতিক্রমী মানুষটি জানালেন,”ব্যবসায়ী হওয়ার মনোবাসনা ছিল তাই পূর্ণ হলো।” আর নিজেকে যে পরিচয়ে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন জানাতে গিয়ে বললেন,” একজন উদ্যোক্তা কিংবা একাডেমিশিয়ানের পাশাপাশি আমার লেখালেখির প্রতি আগ্রহ রয়েছে। সম্প্রতি আমি আমার পরিবার, ফেলে আসা দিন ও চট্টগ্রামের সঙ্গে বিশ্বের আদি যোগাযোগ এবং সাংস্কৃতিক আদান প্রদানের যে ইতিহাস তাকে উপজীব্য করে একটি বই লিখছি। সে সুবাদে নিজেকে একজন লেখক, শিক্ষক ও ব্যবসায়ী হিসেবে পরিচয় দিতে পছন্দ করি।”

যারা উদ্দ্যোক্তা হতে চায় তাদের জন্য পরামর্শ জানালেন তিনি- “প্রতিটি সমস্যাকে কেবল সমস্যা নয় বরং সুযোগ হিসেবে দেখার মানসিকতা রাখতে হবে। কলেজ- বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিভিন্ন আইডিয়া নিয়ে কাজ করার অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।

About arthonitee

Check Also

BPA Election -1

বাংলাদেশ ফিজিক্যাল থেরাপি এসোসিয়েশন সভাপতি দলিলুর রহমান , মহাসচিব ফরিদ উদ্দিন

ডাঃ এম ইয়াছিন আলী সহ-সভাপতি নির্বাচিত ২ মার্চ ২০১৮ তারিখে বাংলাদেশ ফিজিক্যাল থেরাপি এসোসিয়েশন (বিপিএ) …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *