প্রচ্ছদ / Uncategorized / গ্রাফিক ডিজাইন যুগ যুগ ধরে ছিল, আছে এবং থাকবে

গ্রাফিক ডিজাইন যুগ যুগ ধরে ছিল, আছে এবং থাকবে

ict

গ্রাফিক ডিজাইন হলো যোগাযোগের মাধ্যম। আমরা যখন কোন ডিজাইন দেখি তখন যা বুঝি সেটাই হচ্ছে ডিজাইনের ভাষা। তাই এমনভাবে ডিজাইন করতে হবে যেটা ডিজাইনের ভাষায় প্রকাশিত হয়। আমরা যখন লাল রঙের কোন ডিজাইন দেখি তখন সেই রঙ দিয়েই তীব্রতা প্রকাশিত হয়। গ্রাফিক ডিজাইন হলো ক্রিয়েটিভ চিন্তার বাস্তব রুপদানের সমাধান। গ্রাফিক ডিজাইন দিয়েই ক্রিয়েটিভ চিন্তা কে বহিঃপ্রকাশ করা হয়। আমরা চারিদিকে যত কিছু দেখি সব কিছুই গ্রাফিক ডিজাইনের অবদান। গায়ের জামা থেকে শুরু করে ঘরের সকল আসবাব পত্রই গ্রাফিক ডিজাইনের অবদান। তাই গ্রাফিক ডিজাইনার হিসেবে আপনার চারপাশ অবজার্ব করার ক্ষমতাও থাকতে হবে।
ড্রয়িং এবং স্কেচিং হচ্ছে মানুষের আদিম মাইন্ড ম্যাপিং পদ্ধতি। বর্তমান এই কম্পিউটার এবং মোবাইলের যুগে কলম কিংবা পেন্সিল হয়তো খুব বেশি ধরা হয় না কিন্তু ড্রয়িং এবং স্কেচিং ক্রিয়েটিভ কাজে সব সময়ই মৌলিক। যে কোন ধরণের ভিজুয়াল আর্টের কথা চলে আসে তখন সেটা শুরুই হয় ড্রয়িং দিয়ে। প্রত্যেক আইডিয়া স্কেচ দিয়েই শুরু করা উচিত। যখন আমরা এই স্টেপ বাদ দিয়ে চলে যাই তখনই আমাদের ডিজাইনে চলে আসে অপরিপূর্ণতা। তাই ডিজাইনার হিসেবে স্কেচিং অনুশীলন চালিয়ে যাওয়া উচিত সব সময়।
ডিজাইন ভাল করার জন্য অনেক কিছুই আপনাকে জানতে হবে তবে প্রধান এবং মৌলিক টপিক হলো টাইপোগ্রাফি, লে আউট এবং রঙ। এই ডিজাইন এলিমেন্টগুলো হচ্ছে ডিজাইনের জন্য DNA এবং আপনার ডিজাইন কতটা ইফেকটিভ হবে সেটা এগুলোর উপরেই অনেকটা নির্ভর করে। আপনি যখন ডিজাইন শুরু করবেন তখন এগুলোর দিকেই প্রথম ফোকাস করুন। কারণ এগুলোই আপনাকে বলে দিবে আপনার ডিজাইন কেমন হতে যাচ্ছে এবং আপনার ক্যারিয়ার কিভাবে বিল্ড আপ হচ্ছে।

১৯৩৮ সালের বাটা বিজ্ঞাপন!

bata
আপনি যদি না জানেন কিভাবে আপনার ফাইনাল ডিজাইন বেস্ট রেজাল্ট দিবে তাহলে আপনি যত ভাল ডিজাইনারই হোন না কেন আপনার অনেক কাজই বৃথা যাবে। ডিজাইনারকে অবশ্যই জানতে হবে কিভাবে এই ফাইল ডিজিটাল বিভিন্ন ফরম্যাটে যেমন ইবুক, ওয়েব সাইট কিংবা অ্যাপসে সব চেয়ে ভাল দেখাবে এবং প্রিন্টের জন্য বিশেষ ফরম্যাট, সেটিংস সহ সব কিছুই সঠিকভাবে জানতে হবে। আপনি যদি প্রিন্ট মিডিয়াতে নতুন জব নিয়ে থাকেন তাহলে এই সেক্টরে যারা অভিজ্ঞ তাদের সাথে কথা বলুন এবং না জানা বিষয়গুলো নিয়ে প্রতিনিয়ত প্রশ্ন করে জেনে নিন।
আমাদের দেশে ডিজাইন হাউজে সব সময়ই এমন ডিজাইনার খোজা হয় যারা একই সাথে লোগো ডিজাইন, ম্যাগাজিন, অ্যাপস এবং ওয়েব ডিজাইন মক আপ করতে পারবে। এমনকি অনেক হাউজেই ডিজাইনারকে ভিডিও এডিটিং এবং শুটিং ও জানতে হয়! তাই এই যুগে যত বেশি জানবেন তত বেশি কাজের ক্ষেত্র বাড়বে। মাল্টিমিডিয়া সব সময়ই এগিয়ে যাবে এই ডিজিটাল যুগে।

ফটোশপ, ইলাস্ট্রেটর হচ্ছে বর্তমানে সবচেয়ে বহুল প্রচলিত সফটওয়্যার। আপনার কাজ সহজে এবং দ্রুত গতিতে করতে এই সফটওয়্যারগুলোর কোন জুড়ি নেই। যদিও বিভিন্ন ওপেন সোর্স সফটওয়্যার রয়েছে যেগুলো দিয়েও ডিজাইন করা যায় তবে ডিজাইনার কমিনিউটিতে ফটোশপ এবং ইলাস্ট্রেটর সফটওয়্যারই বিভিন্ন কারণে সমাদৃত। এমনকি অনেক জব অফারে এটা উল্লেখই করা থাকে যে এই সফটওয়্যারগুলো জানা থাকা লাগবে।
কোথায় শিখবেন
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সমাজসেবা অধিদফতরের নিবন্ধিত প্রতিষ্ঠান নাছিমা এনাম ফাউন্ডেশনের সহযোগী প্রতিষ্ঠান আইসিটি ক্যারিয়ার দেশের আর্থসামাজিক উন্নয়নের সাথে সম্পর্কিত বিভিন্ন সেক্টরের বিশেষায়িত বিষয়ের ওপর, বিশেষ করে সফল গ্রাফিক্স ডিজাইনার তৈরির লক্ষ্যে ২০০৪ সাল থেকে প্রশিক্ষণ প্রদান করে আসছে।
যোগাযোগ: কনকর্ড এম্পোরিয়াম (১৩৫, নিচতলা), ২৫৩-২৫৪ এলিফ্যান্ট রোড, কাটাবন, ঢাকা। ০১৭১২৯১১৫৬৯,০১৬২৬০৩২৭৭১

About arthonitee

Check Also

rajja

জয়নগর হাই স্কুলের নির্বাচন অনুষ্ঠিত

গোপালগঞ্জের কাশিয়ানীরর জয়নগর হাই স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির রবিবারে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সকাল দশটা হতে ভোট গ্রহণ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *